November 24, 2019

বাংলাদেশের এনিমেশন সেক্টর সমস্যা ও সম্ভাবনা

এনিমেশন আমার কাজের এলাকা না, কিন্তু দারুণ পছন্দ করি (কে না করে?)। এবং জানি যে আমাদের দেশে দারুণ দারুণ সব এনিমেটর আছেন অনেক আগে থেকেই। তারা বেশ ভাল ভাল কাজও করেন, তবে সেগুলি আমরা দেখতে পাই না কেন? আর কেনই বা আমাদের দেশের ছোটদের দেখতে হচ্ছে শুধুমাত্র বিদেশী কার্টুনের ডাবিং, বা সরাসরি বিদেশী কার্টুন? যদিও আমি বিশ্বাস করি দেশী বা বিদেশী বলে কিছু নেই, আছে ভাল আর ভাল না এই দুই ধরনের কাজ। কিন্তু সমস্যা দেখা দেয় যখন আপনি ন্যাশনালিজমে বিশ্বাস করেন, অর্থাৎ আপনার বুঝতে শেখা শিশুদের আপনি নিজের দেশের আবহে, নিজের মত করে বড়ো করতে চাচ্ছেন তখন। তখন বাংলা বাদ দিয়ে হঠাত বিদেশী কার্টুন চরিত্রের ভাষায় যখন কথা বলা শুরু করে, বা তাদের মত হবার চেষ্টা করে তখন আপনি আঁৎকে ওঠেন।

এখন কথা হল এত এত এনিমেটররা আছেন, তারপরেও আমাদের দেশী এনিমেশন নেই কেন? যেহেতু আমি নিজে এই সেক্টরের না তাই জানার জন্যে আমাদের ফেইসবুকের আঁকিয়ে গ্রুপ আঁকান্তিসে যেখানে অনেক পেশাদার এনিমেটররা আছেন সেখানে জানতে চেয়ে প্রশ্ন করেছিলাম  যে কেন আমাদের এনিমেশন নেই? এতে যে যে সমস্যাগুলির কথা এসেছে তা মোটামুটি এরকম-

১. টাকা নাই। (এনিমেশন অনেক খরচসাপেক্ষ ও সময়সাপেক্ষ মাধ্যম, আমাদের বাজার এখনো তা কেনার জন্যে তৈরী না।)
২. ভালো এনিমেটরের অভাব (সফটওয়ার জানা লোক আছে কিন্তু এনিমেটর খুব কম)
৩. ক্লায়েন্ট এ ব্যাপারে অজ্ঞ, তারা এর সম্ভাবনাও বোঝে না, যে কারণে এ খাতে বিনিয়োগ করতেও আগ্রহী হয় না।
৪. পেশাদারিত্ব নাই (ক্লায়েন্ট এর পক্ষ থেকে বিল দিতে দেরী করা, ফলে ছোট স্টুডিওগুলির টিকে থাকা মুশকিল)
৬. ভাল ইনকাম করা হাউজেও এনিমেটরদের বেতন কম।
৭. সরকারের পৃষ্ঠপোষকতা বলতে গেলে নেই।
৮. এনিমেশন শেখার ভাল স্কুল নেই।

সরাসরি এই সেক্টরে বেশ অনেকদিন ধরে কাজ করছেন এমন একজন শিহাব ভাই Mohamma Shihab Uddin (D Crows এনিমেশন এর ফাউন্ডার মেম্বার ও C.E.O) একেবারে টাকা পয়সার হিসাবে একটা ধারনা দিয়েছেন মার্কেটের, সেটা বেশ গুরুত্বপূর্ণ মনে হওয়াতে এখানে তুলে দিলাম-

এই দেশে এখন এনিমেশন নিয়ে কাজ করে একদম হাতে গোনা ৪/৫ জন। টিভিতে সিরিজ করতে গেলে মাসে নুন্যতম ৪টি পর্ব বানাতে হবে যা কিনা ২০ মিনিট করে মিনিমাম। মানে ৮০ মিনিট। আর ২০ মিনিটের একটা পর্ব করতে যে পরিমান রিসোর্স লাগে সেটা নেই। তারপর আছে এক পর্বের দাম। কমপক্ষে ৭০ হাজার দিবে একটা পর্বের জন্যে। যারা এনিমশন নিয়ে কাজ করে, সবচেয়ে লো কোয়ালিটির কাজও ৭০ হাজারে দেয়া সম্ভব না। তার উপর মাসে ৮০ মিনিট। ২ লাখ ৮০ হাজার দিয়ে ৮০ মিনিট। টিভির মালিকরাও বলে, বাচ্চাদের শোতে এ্যাড পাওয়া মুশকিল। এটা এমন এক গ্যাড়াকল যেখান থেকে বেরিয়ে আসা সম্ভব না যদি না উপর থেকে কেউ টেনে তুলে।

এ সময়ের আরেক দারুণ পেশাদার এনিমেটর সাজ্জাদ মজুমদার Pixelaa Studios  যা যোগ করেন তার ভাবার্থ এরকম-
অনেক পরিশ্রম করে নামমাত্র মূল্যে এনিমেশন ক্লায়েন্টদের দিচ্ছি ও প্রশংসা পাচ্ছি, কিন্তু তারা পেমেন্টে এত গাফিলতি করে যে এক একটা কাজের পারিশ্রমিক পেতে গড়ে মাস তিনেক লেগে যায়, তদ্দিন স্টুডিও হিসেবে টিকে থাকা মুশকিল, ফ্রিল্যান্সার হওয়া সম্ভব।
EndingScene  এর হৃদয় শিকদার একেবারে পয়েন্ট করে বলেন
1. Government help,
2. Current Animation market with client,
3. Animation school,
4. Minimum Animation studio,
5. Enough experience animators and artists,
6. Good story,
7. Team unity,

আরো অনেকেই সেই আলোচনায় দারুণ দারুণ সব মন্তব্য যোগ করেছেন। আসলে বাইরে থেকে অনেক কিছু ভেবে ভেবে মন্তব্য করা যায়, দোষ ধরা যায় কিন্তু যারা এখানে কাজ করছেন আমি তাঁদের মুখ থেকেই আসল সমস্যাটা শুনতে চাইছিলাম। এখন বেশ অনেকটাই পরিষ্কার হয়েছে ধারনাটা। এখন আসি পরের ধাপে, সমস্যা তো জানি, শুনলাম বুঝলাম। সমাধান কী?

একটা লেখা লিখে সেটা বের করে ফেলবো ব্যাপারটা এমন না, তবে  হৃদয় শিকদার ওখানে একটা জায়গায় লিখেছেন-
ভাই কমিক্স নিয়ে আপনারা কিভাবে কাজ করলেন? সেটারও তো ফিল্ড ছিলো না, সেই গল্পটা শুনতে চাই।
এই লেখার অবতারনা আসলে সেই কারণেই। আমি কমিক্স আর কার্টুন নিয়ে কাজ করি। আর সত্যি বলতে কার্টুন বা কমিক্সের সমস্যা কিন্তু ডিগ্রিতে কম হতে পারে কিন্তু ধরনে সম্পূর্ণ এক, সেখানে তো এনিমেশনের তুলনায় হাজার ভাগের এক ভাগ পেমেন্ট। ক্লায়েন্ট এখানেও টাকা নিয়ে ঘোরায়, সরকারের সাহায্য যে চাওয়া যেতে পারে এটাই আমরা জানি না, এনিমশন তো তাও কোথাও কোথাও পড়ানো হয় আমাদের কার্টুনের তো কোন স্কুলই নেই, বরং ফাইন আর্টস একাডেমিগুলিতে এটাকে নিরুৎসাহিত করা হয়। তাহলে আমরা কিভাবে কাজ করি? আর কমিক্সের কথা যদি বলি তাহলে এটা কিন্তু প্রিন্টিং এর দিক থেকে দেখলে সবচেয়ে খরচসাপেক্ষ প্রকাশনা, আর্টিস্ট পেমেন্ট ও চার রঙের প্রিন্ট নিয়ে যার ধারনা আছে তিনি বুঝবেন।
তাহলে আমাদের গল্পটা বলা যাক, সেখানেও সমস্যা একই ছিল প্রায়,


১. টাকা নাই। 

আমরা প্রথম কমিক্সগুলি প্রিন্ট করি টাকা ধার করে, ৬০ হাজার টাকা নিয়ে ঢাকা কমিক্সের যাত্রা শুরু, বাকিটা প্রেসে বাকি ছিল, বই বিক্রি করে আমরা সেই টাকা শোধ করি।

২. ভালো কমিক্স আর্টিস্টের অভাব (ড্রয়িং জানা অনেকেই আছেন কিন্তু প্যানেলে প্যানেলে একটা গল্প বলা লোক কম)

আমরা শুরু করি চারজন, পাঁচ বছর যাবার আগেই আমাদের সাথে ভিড়েছে অসংখ্য মেধাবী কমিক্স আঁকিয়ে, এখন আমাদের সংখ্যা ২০ জনেরও বেশী! তার মানে আসলে অনেক মেধা চারিদিকে আছে, তারাও ভাবছে লোক কম, এখন একজন শুরু করলেই কিন্তু সমমনা অনেকেই সেখানে ভীড়তে শুরু করে, আমাদের সেটাই অভিজ্ঞতা।

৩. ক্লায়েন্ট এ ব্যাপারে অজ্ঞ - আমাদের ক্লায়েন্ট বলতে ছিলো প্রথমত প্রকাশকরা, এবং প্রকাশকরা এর প্রিন্টিং কস্ট শুনে কেউই কমিক্স করতে রাজি হন নি, তাঁদের দাবী ছিল নিউজ প্রিন্ট, সাদাকালো আর 'হাসির' হলে তারা 'ভেবে' দেখবেন।

আমরা প্রথম কমিক্স গুলি ঝুঁকি নিয়ে বাজারে ছাড়ি, এরপর সেটার সাফল্য দেখার পর অনেক প্রকাশনাই কিভাবে কমিক্স করা যায় তা জানতে চেয়েছেন অ রিতিমত প্রকাশও করে যাচ্ছেন, দেশের কিশোর পত্রিকা গুলিতে আমাদের কমিক্স এখন অপরিহার্য হয়ে গেছে। এন জিও ক্লায়েন্টরাও এখন সেই গৎবাঁধা ফিল্ড বুকের বদলে কমিক্স করাতে চাচ্ছেন। তার মানে ক্লায়ন্টদের এ ব্যাপারে অজ্ঞতা কাজের মাধ্যমেই দূর হয়েছে।

৪. পেশাদারিত্ব নাই (ক্লায়েন্ট এর পক্ষ থেকে বিল দিতে দেরী করা, ফলে ছোট স্টুডিওগুলির টিকে থাকা মুশকিল)

এনিমেশনে ক্লায়েন্ট বিল দিতে দেরি করলেও আশা করি দেরী হলেও পাওয়া যায়? (বুঝে নিন :P)

আমরা যেটা করি কিছু পেপার ওয়ার্ক করে নেই, যেমন ৩০ এডভান্স না দিলে সেই ক্লায়েন্টের কাজ করবো না, এটা অবশ্য প্রথমেই হবে না, আগে ব্র্যান্ডিং দাঁড়াবে, এর পর সেটা দাবী করা যাবে। কাজ পাবার ক্লায়েন্ট যাচাই না করে সবার কাজ নিয়ে বসে ধরা খাবার চাইতে বিশ্বস্ত, মানে আগেও যারা ভাল ও সময়মত পেমেন্ট দিয়েছে তাদের কাজ করাই ভাল। আর একান্ত দুর্বল ক্লায়েন্টের কাজ করলে সেটা মেনে নিয়েই কাজটা নেই যে এর বিল ৪ মাস পর পাওয়া গেলেও যেতে পারে।

৬. ভাল ইনকাম করা হাউজেও এনিমেটরদের বেতন কম।
আমাদের বেতন বলে কিছু নাই-ই। আঁকলে টাকা পাওয়া যায়, তাও নগণ্য। এনিমেটররা আমাদের ইনকাম জানতে চেয়ে লজ্জ্বা দেবেন না।

৭. সরকারের পৃষ্ঠপোষকতা বলতে গেলে নেই। 
সরকারের পৃষ্ঠপোষকতা হলে ভালো হয়, কিন্তু এটা আমরা ভাবি নি, আর ব্যাপারটা যদি ফান্ড হয় তবে সেই সাহায্য নিলে আপনার 'টাকা' হবে ঠিকই, কাজ হবে না, আপনার তখন ইনভেস্ট তোলার কোন দায় থাকবে না, আদমজী জুট মিলে পরিণত হবেন।

৮. কমিক্স/ কার্টুন আঁকা শেখার ভাল স্কুল নেই। 
একাডেমি অবশ্যই অনেক জরুরী, আমাদেরও নেই, কিন্তু ইন্টারনেট আর শেখার ইচ্ছা যার আছে তার কাজ শুরু করতে আর কিছু লাগে কী? সবশেষে যারা এসব সমস্যা নিয়ে চিন্তিত তাদের জন্যে আমার খুব প্রিয় একজন এনিমেশন দিকপাল ওসামু তেজুকা'র বাণী তুলে দি'-

আমি যখন অন্যদের জিজ্ঞেস করি, এনিমেশন বানাও না কেন? তারা উত্তর দেয়ে- টাকা নাই, আমি অবাক হই বলি আমারও তো টাকা নাই, কখনো ছিলোও না, আমি যা করেছি তা হল কী করতে চাই সেটা ঠিক করে করে ফেলা, সবার সামনে সেটা করে একটা উদাহরণ তৈরী করা, আর শেষ করে বলা- আমরা পেরেছি! আর এর পর ভাবা শুরু করলাম এবারে এমন কিছু করি যা একেবারে পুরস্কার টুরস্কার জিতে যাবে!

ওসামু তেজুকা হচ্ছেন জাপানীজ কমিক্স (মাঙ্গা) ও এনিমশনের জনক। সবেশষে তাই আমার মনে হয়ে এনিমশেন সেক্টরে আরেকটা জিনিসের অভাব, এবং সেটাই অন্যতম প্রধান কারণ, সেটা হল একজন মেন্টর, যিনি তেজুকার মত বলবেন, আরে টাকা কোন বিষয় না, কে সাহায্য করল কি করল না, ক্লায়েন্ট কী বললো বা বল্লো না ব্যাওয়ার না, করা শুরু করে দাও। আমি মনে করি আমাদের কার্টুন সেক্টরে আমরা একজন তেজুকা পেয়েছি বলেই এখন এরকম লেখা লিখতে পারছি, কমিক্স করতে পারছি। তিনি হচ্ছেন -আহসান হাবীব। এনিমেশন সেক্টরের সমস্যা সমাধানে আমাদের এরকম একজন আহসান হাবীবকেও দরকার।





পরিশেষে বলা উচিত, কমিক্স ও এনিমেশন তূলনা করা যাবে না, কারণ একটা কমিক্স একা একজন বাসায় বসে এঁকে ফেলা যতটা সহজ, এনিমেশনের ব্যাপারটা তেমন না, এনিমেশন যথেষ্ট খরচ সাপেক্ষ ও অনেক সময় ও পরিশ্রম সাপেক্ষ, তার মানে এখানে ডেডিকেশনটা দরকার আরো অনেক অনেক বেশী, কিন্তু কোন কিছুই অসম্ভব না।


3 comments:

বিদায় ব্লগস্পট

গুণে গুণে ১২ বছর এখানে কাটালাম, এবং হঠাৎ সেদিন হঠাৎ আবিষ্কার কুরলাম আমি ছাড়া আর কেউই নেই আশেপাশে। খোঁজ নিয়ে দেখতে পাচ্ছি এখন আর্টিস্টরা সবাই...