March 07, 2018

ক্লায়েন্ট বোঝার তরিকা

কার্টুন ড্রয়িং আর অন্যান্য ইলাস্ট্রেশন করার সুবাদে বেশ কিছু অদ্ভূত আর কিম্ভূত মানুষদের সাথে পরিচয়, দেখা-সাক্ষাত হয়েছে। তার মধ্যে কাজ করতে গিয়ে কয়েকটা প্যাটার্ন দেখেছি যেগুলিতে ফেলে দিয়ে এখন সহজেই কোন মানুষ কাজ করার জন্যে কেমন হবে সেটা বোঝা সহজ হয়। নতুন যারা কাজ করছে, তাদেরও নিশ্চই এই সব সমস্যার মুখোমুখি হতে হচ্ছে। আমার নিজের অভিজ্ঞতা কিছু লিখে দিলে তা যদি কারো কাজে আসে তো ক্ষতি কী? আমার কয়েকটা ক্লায়েন্ট সম্পর্কিত অবজারভেশন এইরকম-

১. আসেন বসি ক্লায়েন্ট

এই দলের লোকেরা প্রথমেই বলবে আসেন একদিন বসি- খবরদার, বসেছেন কি মোটামুটি জীবনের কয়েকটা দিন শেষ, বসতে বসতে পেছন ব্যাথা হয়ে যাবে কাজ আর হবে না। আসেন বসি, ভাবি কী করা যায়, আমাদের অনেক প্ল্যান- এই কথা যারা বলে আসলে তাদের কোন প্ল্যানই নাই। কাজও নাই। তারা এখনো নিশ্চিত না তারা কী করবে। তারা আসলে আপনার সাথে কথাবার্তা বলে পরে ভেবে টেবে জানাবে যে এখন তাহলে না করে কদিন পরে 'ভাল' মত করব। আসল কাজের ক্ল্যায়েন্ট আপনাকে নির্দিষ্ট কাজের কথাই বলবে। কয়টা ড্রয়িং কয়দিনে লাগবে, কালার কেমন হবে ইত্যাদি।

একেবারে যারা শুরু করেছে তাদের পক্ষে প্রথম প্রথম এই জিনিস এড়ানো কঠিন। তবে একটা ভালো পদ্ধতি হল এদের খুব ভদ্রভাবে বলা- ভাই আপনার প্ল্যানটি আমাকে ইমেইল করুন, ফিরতি ইমেইলে আমি কোন কাজের জন্যে কত টাকা নেব আর ক'দিন লাগবে তা জানাবো। তার সাথে আমার এই প্রজেক্টের সাথে যায় এমন স্যাম্পল পাঠিয়ে দেব। এই কথার পরে বেশিরভাগ 'আসেন বসি' ক্লায়েন্ট ঝরে যাবে।


২. এডিট ক্লায়েন্ট

এই গ্রুপ আপনাকে প্রথমে বলবে কাজটা খুবই সামান্য, বি ভেরি কেয়ারফুল- এটা সাইকলজিক্যাল ট্রিক। আপনাকে আগেই বুঝিয়ে দিল এটা কিছুই না, মানে আপনি আর কয় টাকাই বা চাইবেন। এবং আদপে কাজ করার পর দেখা যাবে সেটার এডিট আসা শুরু করবে। আসতেই থাকবে। আসতেই থাকবে। ছোট একটা কাজ অনেক এডিট হবে। তারা বলবে যে আসলে তারা হ্যাপি-ই ছিলো কিন্তু তাদের বস (যিনি সাধারণত বিদেশেই থাকেন) এইটা ফিডব্যাক দিয়েছেন।

এটার সহজ সমাধান হল আপনার প্রোপোজালে বা প্রথম ইমেইলের শেষে ছোট্ট করে লিখে দেয়া যে প্রথম যেই ডিজাইনে সবাই একমত হবে তারপর যে কোন এডিট করলেই পাঁচ হাজার টাকা। এবার যত ইচ্ছা এডিট দিন। এটা ম্যাজিকের মত কাজ করেছে আমার জন্যে।

৩. দেশের কাজ করা ক্লায়েন্ট 

এরা অতি দেশপ্রেমিক। মোটেও নিজেদের লাভের জন্যে কাজ করছে না, 'সম্পূর্ণ' অলাভজনক প্রতিষ্ঠান। এটা শুনলেই ডাবল সতর্ক হন। যদি আসলেই তাই হয় তবে সেটা তাদের সমাজ সেবা, আপনার না। কিন্তু তারা প্রথমেই তারা যে কত মহান একটা কাজ নিঃস্বার্থভাবে করেন সেটা শুনিয়ে আপনাকে বোঝাবে যে কাজে কাজেই এই কাজটা আপনার বিনা পয়সায় করে দেয়া উচিত।

বি প্রফেশনাল। সমাজসেবা আপনি করেন, কিন্তু সেটা অচেনা একজন ক্লায়েন্টের জন্যে নয়। বলে দিন আপনার যা রেট তার এক টাকাও কমবে না। তবে বিল ক্লিয়ার হলে তাদের কাজ ভাল লাগলে আপনার ইচ্ছা হলে সেখান থেকে আপনি একটা ডোনেশন দিতেও পারেন।

৪. সময় নাই ক্লায়েন্ট

ভাই কাজটা কিন্তু খুব আর্জেন্ট,করে দিতে পারবেন? - এই কথা বলা কর্পোরেট একটা ট্রিক্স। আপনার শুনেই মনে হবে বাহ, এটা তো চ্যালেঞ্জিং বেশ। ট্রাই করি তো। এদের একটা অংশের আসলে অনেক সময় আছে কিন্তু চাপে রেখে আপনাকে দিয়ে কাজ করালে আপনার একটা সেন্স অফ প্রাইড আসবে যে বাহ্‌ আমি কত দ্রুত করে দিয়ে এদের বিরাট ব্যবসা বাঁচালাম। আরেকটা গ্রুপ আসলেই সব জায়গায়  ঢিলেমি করে আসল কাজের জায়গায় এসে সব কিছু আর্টিস্টের ওপর চাপায়। এদেরকে যাস্ট 'না' বলুন। কারণ চাপের মধ্যে আপনি করলে দুইটা সমস্যা, তারা পরে কাজে ধরে নিবে এই সময়ই যথেষ্ট, কারণ আগে তো দুইদিনে আপনি বিশটা ড্রয়িং করেছেন তাহলে এখন কেন হবে না, বা মাত্র দুইদিনের কাজে এত টাকা চাচ্ছেন? আরেকটা আরো বড় সমস্যা হল এতে আপনার কাজের মান খারাপ হবে। পেছনের কাহিনি কেউ জানবে না, থেকে যাবে কাজটা।

এদের উত্তরে আমি বলি, 'ভাই কে বলেছে সময় নাই? আমার তো অনেক সময়, আপনার সময় নাই, সেটার যন্ত্রনা আমি কেন নেব?'

৫. বন্ধু ক্লায়েন্ট

এরা সাধারণত পরিচিতদের মধ্যে থাকে, তারা প্রস্তাব দেবে এমন যে একটা কাজ 'আমরা' পেতে পারি, তুমি কিছু ড্রয়িং কর, 'ক্লায়েন্ট' যদি খায় তাহলে টাকা পাব। সাবধান। সে ছদ্মবেশী ক্লায়েন্ট ছাড়া আর কিছুই না। যে কাজ দিচ্ছে সে-ই ক্লায়েন্ট। এই গ্রুপটা পরিচয়ের সুযোগ কাজে লাগিয়ে এমন ভাব ধরবে যেন আপনি আর সে একটা টিম। সবাই মিলে একটা কাজ পাচ্ছি।

আসলে ব্যপারটা মোটেও তা না। তাকে চক্ষুলজ্জ্বা ভুলে বলে দিন, কাজ যার নির্দেশে করব বিল ও তার থেকেই নেব। আমার ক্লায়েন্ট ভাই তুমি। কন্ডিশনাল কাজ করার চে না করা ভাল।

এখন কথা হল এত বাছাবাছি আমি এদ্দিন পরে করতে পারছি, নতুন কাজের সময় এত কিছু করাটা কঠিন হয়ে যায়। সে ক্ষেত্রে কী করার? নতুন আঁকিয়েদের জন্যে তবে ট্রিকস কী হবে। সেটা অচিরেই আবার লিখে তুলে দিচ্ছি ব্লগেই।

চোখ রাখুন এইখানেই :D


11 comments:

  1. ধন্যবাদ মেহেদী ভাই

    ReplyDelete
  2. Hahahhaha... khub valo likhcen Mehedi vai... Khub true :)

    ReplyDelete
  3. এক থেকে পাঁচ, সবগুলো হুবহু মিলে গেছে.. ধন্যবাদ মেহেদী.. সাথে চমতকার টিপস এর জন্য.. ভবিষ্যৎ এ কাজে দিবে...

    ReplyDelete
  4. ভাইরে! জীবনে এক ক্লায়েন্টই আমারে একসাথে এই পাচকলা দেখায়ে দিসে! :/ এবং সেই ক্লায়েন্টের ভূত এখনও পিছু ছাড়ে না। :/

    ReplyDelete
  5. কত কিসিমের ক্লায়েন্ট! আহা...

    ReplyDelete