August 31, 2010

খোমাকেচারঃ রাম মোহন


ভারতের জীবন্ত কার্টুন কিংবদন্তি রাম মোহন। কপাল গুনে এই মূহুর্তে চলা ইউনিসেফের একটা কর্মশালায় (মীনা সিরিজ নিয়ে) তাঁর সাথে বসে কাজ করবার সুযোগ ঘটছে। আজ প্রথম দিনে তাঁর সামনে বসে আঁকা। (পরশু এটা তাকে বাঁধাই করে দেবার প্ল্যান)
গোটা ওয়ার্কশপ নিয়ে অচিরেই বিরাট এক পোস্ট দিতে যাচ্ছি।

August 17, 2010

খোমাকেচারঃ শিশির ভট্টাচার্য

বাংলাদেশের সর্বকালের সেরা ক্যরিকেচারিস্ট শিশির ভট্টাচার্য।
তাঁর সাথে আমার পরিচয় ২০০১ সালে। তাঁর কলাবাগানের বাসায় মিলন ভাই (মশহুরুল আমিন মিলন, বাংলাদেশ এস্ট্রোনমিক্যাল এসোসিয়েশনের পরিচালক) এর সাথে যেদিন যাই হার্টে পুরো দ্রিমি দ্রিমি বাজছিলো... আমি শিশির ভট্টাচার্যের বাসায় এসেছি? খুবই সাদামাটা ড্রয়িং রুম, ঘরে কলিংবেলের বদলে হাতে টানা একটা ঘন্টার ব্যবস্থা। ঢুকলেই বোঝা যায় আর্টিস্টের বাসা, বৌদি তখনো বেঁচে। শ্রাবন্তি মাত্র বছর তিন কি চারের শিশু। মিলন ভাই আমাকে দেখিয়ে বললেন, ‘শিশিরদা এ-ও কার্টুন আঁকে’ শুনে আমার নিজের ভেতরে সেঁধিয়ে যাবার যোগাড়। নিজেকে মনে হচ্ছিলো মাত্র ধুঁয়ে মুছে সাফ করা সাদা মেঝের ওপর একটা তেলাপোকা। যাই হোক তারপরেই সবচেয়ে বড় গর্হিত কাজটা করি, মিলন ভাইয়ের দেখাদেখি আমিও তাকে ‘শিশিরদা’ বলে ডাকা শুরু করি। আসলে ওই মূহুর্তে আর কিছু মাথায় আসেনি, ওনাকে অন্তত স্যার বলেও যে ডাকা যায় তা-ও ভাবিনি। সেই থেকে এখনো গ্রাম্য চাঁড়ালের মতন আমি চারুকলায় সবার সামনে বলি ‘কেমন আছেন শিশিরদা?’ উনি স্মিত হেসে বলেন ‘আরে কি খবর উন্মাদ?’

তারপর দেখতে দেখতে ২০০৯, বৌদি হঠাৎ হৃদরোগে মারা গেলেন। সেই বৌদি, যিনি হাতে টানা ঘন্টাটা বাজালে দরজা খুলে বলতেন ‘এই, মেহেদী এসছে’ আমার মতন অকিঞ্চিৎকর কে নাম শুদ্ধ মনে রাখা সেই বৌদি...।
এই ফুটবল বিশ্বকাপ চলাকালীন শিশিরদার নতুন বাসায় গিয়েছিলাম। ধানমন্ডিতে বিরাট দোতলা বাসা। শ্রাবন্তি শিলং এর বোর্ডিং স্কুল থেকে ছুটিতে এসেছিলো। বেশ ভালো একটা সকালের বৈঠক হল। ফাঁকে শিশিরদা কে রিসেন্ট কিছু কাজ দেখালাম। তাঁর একটা ক্যারিকেচার করতে চেষ্টা করছি দেখে নিজেই একটা এঁকে দেখালেন(প্রথম আঁকা দ্রষ্টব্য)। আমরা ক্যারিকেচার নিয়ে তাঁর থেকে কোন ক্লাস আশা করতে পারি কি না জানতে চাইলে বললেন- হতে পারে। এমনকি হতে পারে তাঁর ওই বিরাট বাসারই কোন এক কোনায়। মাসে দুইদিন বা একদিন। প্রবল জোশে তাঁর বাসা থেকে বের হলাম। একটা ক্যরিকেচারিস্ট কম্যুনিটি গড়ে তোলা যাবে ভাবতেই উত্তেজনা বোধ করলাম।
রোজার মাসটা যাক, ক্যরিকেচার এর বন্যা বয়ে যাবে। সাথে থাকছেন শিশিরদা!



আমার খাতায় শিশিরদার আঁকা সেলফ ক্যারিকেচার


পেন্সিলে কার্ট্রিজ খাতায় প্রথম রাফ


স্ক্যান ও এডজাস্টমেন্ট সেরে রেফারেন্স পিকচার আনয়ন ফর কালার প্যালেট


কালার শুরু


ডান


প্যানারমিক্যালি ফেইজগুলি

গ্রাফিক ট্যবলেট আর পেন্সিলের কাজ। নেক্সট কাজ নিব আর হ্যাচ এ করার ইচ্ছা রাখি।

August 16, 2010

ডিজনি থেকে কিছু কার্টুন টিপস

আমার একটা Rapidshare account আছে! ওইটা কেনার পর থেকে আমি সারাদিন অফিস করি :) (অফিসের ডাউনলোড স্পিড ২৫০ কেবিপিএস!!) গুগল ফাতা ফাতা করে প্রায় শ'খানেক ড্রয়িং বইয়ের এক ডিজিটাল লাইব্রেরি বানিয়ে ফেলেছি। সেখান থেকেই একটা PDF জেপেগ করে দিলাম। বাকি গুলি কিভাবে শেয়ার করা যায় ভাবতেছি। (কেউ চাইলে পার্সোনালি একটা ২ গিগা পেন ড্রাইভ নিয়া আমার অফিসে আসতে পারেন)

ভালো কথা, এই টিপস গুলা আমাদের মত যারা ফান ম্যাগ আর সাপ্লিমেন্টে অহরহ কাজ করি তাদের জন্য বাইবেল বলা যেতে পারে।









ভালো কথা এইখানে অনেক টার্ম-ই (যেমন পেগ বার, ব্লু পেন্সিল ইত্যাদি) মূলতঃ এনিমেটরদের, শব্দার্থে সব ধরবার দরকার নেই। ভাবছি এই ধরণের কিছু টিপস মিলিয়ে একটা বাংলা পোস্ট বানাবো।

August 15, 2010

স্টাডিঃ রাজীব



উন্মাদের সবচেয়ে ট্রেন্ডি চ্যাপ, রাজীব
অফিসের ক্লারিকাল কাজকর্মগুলি তার করবার কথা। তবে বাস্তবে দেখা যায় সে সপ্তাখানেক পর পর এসে দুইদিনের ছুটির জন্যে দরখাস্ত দেয়। ইদানীং সে তার পাড়ায় ফ্লেক্সিলোডের দোকান দিয়েছে, ফলে আহসান ভাইয়ের সুবিধা যেটা হয়েছে সেটা হল মাঝে মাঝে ফোন দিয়ে তাকে ৩০০ টাকা পাঠাতে বলা। এতে এক ঢিলে দুই পাখির মত কাজ হয়। দ্বিতীয় পাখি রাজীব দুইদিনের মাথায় অফিসে চলে আসে, আহসান ভাইয়ের পেছনে ঘুরঘুর করে বলে 'বস ট্যাগা লাগবো'
(ভালো কথা, সে দেখতে এতোটা ভয়াবহ না, স্টাডির প্রয়োজনে এমন করা হয়েছে)

August 14, 2010

অন স্পট স্টাডি




গতকাল ঢাকা আর্ট সেন্টারে গিয়েছিলাম কার্টুন প্রদর্শনীর যোগাড় যন্ত্র(ণা) করতে। প্রায় ঘন্টা খানেক হুদাহুদি বসে ছিলাম। গ্যালারির জুয়েল ভাই (প্রথম ছবি) একটা কাগজ দেয়াতে বাঁচোয়া। জম্বু মুনি সদৃশ ভদ্রলোককে (দ্বিতীয় ছবি) আঁকতে আঁকতে কোথায় যেন দেখেছি বলে মনে হচ্ছিলো। মাঝপথে বুঝলাম- শিল্পী নিসার হুসেন। চুল লালনীয় কায়দায় বলে প্রথমে চিনি নাই, স্টাডির জন্যে অসাধারণ ফর্ম।

খোমাকেচারঃ শুভ



খোমাখাতার বন্ধু rio shuvo
ECONODX+ faber castell

কিছুটা ট্যোয়ায়লাইট মার্ক ভ্যম্পি লুক দেয়া হয়েছে।

August 11, 2010

গত হপ্তার বুধবার থেকেঃ ৪.০৮.১০



যাতাছি যাতাছি
কুই যাতাছি জানি না...

বুধবারের কার্টুনঃ ১১.০৮.১০


জনতা আর পুলিশ একসাথে আইন তুলে নিয়েছে হাতে,চলছে গণপিটুনি, পুলিশ পিটুনি আর চোরাগোপ্তা গুমখুন।
মাঝে মাঝে ইতিহাসের কিছু ঘটনা পড়ে মনে হত ওই সময়টা কি ভয়ংকর ছিল! চারদিকে খুনোখুনি, মারামারি, চুরি, ডাকাতি ওই সময় লোকজন বাঁচত কিভাবে? ওই সময়ের সমাজের তরুন গোষ্ঠী কি নাকে তেল দিয়ে ঘুমাতো? প্রতিবাদের কেউ ছিলো না?
এখন বুঝতে পারছি আমরা এই মুহুর্তে ওই রকম একটা সময়ই পার করছি। ভয়ংকর সময়ে আমরা নাকে তেল দিয়েই ঘুরছি, হাঁসের মত গায়ে পানি না মেখে চলার কৌশল বুঝে নিয়েছি।
...খারাপ কি?
হাঁসের দলে স্বাগতম

August 01, 2010

উন্মাদ ঈদ সংখ্যা ২০১০: প্রচ্ছদ টিজার



অবশেষে ঈদ সংখ্যার প্রচ্ছদ শেষ করা গেল।
সারাদিন বসে রঙ করলাম, প্রবল ইচ্ছে ছিলো এবার হাতে রঙ করব, শেষ পর্যন্ত বাসায় কার্টৃজ পেপার না থাকায় সেই সবেধন ফটোশপ। মূল ড্রয়িংটা ইস্যু বের হবার পর দিচ্ছি, সেই সাথে আরেকটা বিহাইন্ড দ্যা সিন...